- টুকিটাকিs

ক্লিওপেট্রা (সপ্তম) – Cleopatra VII

ক্লিওপেট্রা (সপ্তম) প্রাচীন মিশরের সহ-শাসিকা হিসাবে প্রায় তিন দশক রাজত্ব করেন । একদিকে যেমন তিনি ছিলেন শিক্ষিতা, বুদ্ধিমতী, বহু ভাষায় পারদর্শী, অপরদিকে ছিলেন অপরূপা সুন্দরী যার মোহিনী রূপের কথা ইতিহাসের পাতায় শ্রুতি হয়ে বেঁচে আছে। দুই মহান রোমান জেনারেল জুলিয়াস সিজার ও মার্ক অ্যান্টনি র সঙ্গে ক্লিওপেট্রার প্রেম সম্বন্ধের মাধ্যমে মৈত্রী স্থাপনা রাণীর কূটনৈতিক জ্ঞানের জ্বলন্ত উদাহরণ। তবে মার্ক অ্যান্টনি র সঙ্গে ক্লিওপেট্রা র প্রেম ছিল একেবারেই উপকথাসুলভ।  দুজনে “ইন-ইমিটেবল লিভারস্ ” নামে একটি ড্রিঙ্কিং সোসাইটিও গঠন করেন । সেখানে ভরপুর রাত্রিকালীন বিনোদনের  ব্যবস্থা ছিল। ছদ্মবেশে তারা আলেকজান্দ্রিয়া র রাস্তায় রাস্তায় রাত্রিকালীন ভ্রমণে বেরোতেন । অ্যাক্টিয়ামের যুদ্ধে পরাজয়ের পর অ্যান্টনি ও ক্লিওপেট্রা আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। শেষ ইচ্ছা মত তাদেরকে একই সঙ্গে সমাধিস্থ করা হয়। সেই সমাধির সন্ধান আজও পাওয়া যায়নি। অবশেষে মিশর রোমান সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়।  তবু  সাহিত্য,  শিল্প ও সংগীত জগতে রাণী আজও অমর হয়়ে আছেন। রুপোলী পর্দায় তিনি  চিত্রিত হয়েছেন বারে বারে ; তার মধ্যে ১৯৬৩ সালে এলিজাবেথ টেলর অভিনীত ক্লিওপেট্রা মুভি টি পৃথিবীর সর্বকালের ব্যয়বহুল মুভিগুলির মধ্যে অন্যতম- যার খরচ শেষ পর্যন্ত ৪৪ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছায় এবং যেখানে কেবলমাত্র রাণীর পোশাকেই খরচ হয়েছিল প্রায় ২ লক্ষ ডলার !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *