- History, Study Materials

British Expansion in India : 1772 – 1818 : Part – I : Warren Hastings – Part B

ওয়ারেন হেস্টিংসের শাসনকালে একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা হল প্রথম ইঙ্গ মারাঠা যুদ্ধ। তবে এই যুদ্ধের জন্য হেস্টিংস কে প্রত্যক্ষ ভাবে দায়ী করা যায় না। মারাঠাদের আভ্যন্তরীণ কলহে কোম্পানির বম্বে কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপই এই যুদ্ধের প্রধান কারণ ছিল।

পুনায় পেশোয়ার আসন নিয়ে রঘুনাথ রাওয়ের সঙ্গে নানা ফড়নবীশ, মহাদাজী সিন্ধিয়া প্রমুখের বিবাদ তৈরী হলে তাঁরা রঘুনাথ রাওকে পদচ্যুত করে নাবালক দ্বিতীয় মাধব রাও কে পেশোয়ার আসনে বসান। রঘুনাথ রাও কোম্পানির শরণাপন্ন হন। কোম্পানির সেনাবাহিনী পেশোয়া বাহিনীকে পরাজিত করে এবং ১৭৭৫ এ সুরাটের সন্ধির দ্বারা রঘুনাথ রাও কে পুনার সিংহাসনে বসানো হয়।

কিন্তু কলকাতার সুপ্রিম কাউন্সিল ও গভর্নর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস সুরাটের সন্ধি অনুমোদনে অস্বীকার করেন এবং নতুন ভাবে পুরন্দরের সন্ধি (১৭৭৬) দ্বারা দ্বিতীয় মাধব রাও কে পেশোয়া হিসাবে স্বীকৃতি দেন।

কিন্তু ইংল্যান্ডের পরিচালক সভা এই পুরন্দরের সন্ধি নাকচ করেন এবং পূর্বে স্বাক্ষরিত সুরাটের সন্ধি কেই  আবার স্বীকৃতি দেন।

নতুন করে যুদ্ধ আরম্ভ হয়। কিন্তু এবার মহাদাজী সিন্ধিয়ার চতুর রণকৌশল ইংরেজ বাহিনীকে চরম ভাবে পরাস্ত করে এবং অনেককে যুদ্ধ বন্দী করে। কোন উপায় না থাকায় কোম্পানি মারাঠাদের সাথে ওয়ান্দেগাঁও এর সন্ধি করে যার শর্তস্বরূপ বম্বে কতৃপক্ষ রঘুনাথ রাও কে মারাঠাদের হাতে তুলে দেয় এবং দ্বিতীয় মাধব রাও কে পেশোয়ার স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়।

বেপরোয়া এবং জেদী হেস্টিংস কিন্তু তখনও বম্বে কতৃপক্ষের এই সন্ধি অগ্রাহ্য করে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে লাগলেন। অবশেষে কূটনৈতিক স্বার্থেই সলবাই এর সন্ধি (১৭৮২) দ্বারা প্রথম ইঙ্গ মারাঠা যুদ্ধের অবসান হয়। কোম্পানি দ্বিতীয় মাধব রাও এর স্বীকৃতি স্বীকার করে।

দীর্ঘ ৮ বছর ধরে চলা এই যুদ্ধে কোম্পানির লোকবল ও অর্থবল উভয়েরই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় এবং পরিবর্তে সলসিটের মত একটি অতি নগন্য স্থান কোম্পানির দখলে আসে। এই যুদ্ধ ছিল ” সূচনার দিক থেকে অপ্রয়োজনীয় ও পরিচালনা র দিক থেকে দুর্ভাগ্যজনক ” ।

** ( ইঙ্গ-মারাঠা সম্পর্ক আমরা পরে বিশদভাবে আলোচনা করব)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *